চাকুরি ও ব্যবসা

করোনায় আর ছাড় নয়, ঋণ পরিশোধ করতে হবে খেলাপীদের

করোনায় আর ছাড় নয়, ঋণ পরিশোধ করতে হবে খেলাপীদের: করোনায় আর ছাড় নয়, ঋণ পরিশোধ করতে হবে খেলাপীদের: বাংলাদেশের ব্যাংক সমূহের ম্যানেজিং ডিরেক্টরদের সংঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরে বৈঠকে খেলাপী ঋণ গ্রহিতাদের থেকে ঋণ আদায়ের বিষয়ের জোর দেওয়ার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। সূত্র: যুগান্তর ডট কম;

কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের প্রভাব মোকাবিলায় দেশে ব্যবসায়-বানিজ্যে প্রসার ঘটাতে হবে।

এই লক্ষ্যে দেশের যেসকল ব্যক্তিগণ ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করে প্রদান করছেন না বা ঋণ খেলাপী হয়েছে তাদের থেকে ঋণ আদায়ের বিষয়ে জোর দেওয়ার পরামর্শ দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর।

একই সাথে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণর মহোদয় দেশের ব্যাংকগুলোর নিয়মিত ঋণের কিস্তির মেয়াদ শেষ হলে তা আদায় করার নির্দেশনার প্রদান করেন।

অর্থাৎ চলতি বছরের প্রথম থেকে যেসব ঋণের বা কিস্তির মেয়াদ শেষ হবে, সেগুলো এখন থেকে আদায় করতে হবে।

২০২১ সালে ব্যাংকার্সদের সাথে বুধবার অনলাইনে অনুষ্ঠিত একসভায় বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর এমডিদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির এসব নির্দেশনা দেন।

ব্যাংক এমডিদের সাথে ভার্চুয়াল এই সভায় অংশগ্রহণ করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর শীর্ষ নির্বাহীরা অংশ নেন। নতুন বছর শুরু হওয়ার পর এটিই প্রথম ব্যাংকার্স সভা।

কোভিড-১৯ বা করোনার ভাইরাসের কারণে ঋণ আদায় ও খেলাপি ঋণে আর কোনো ছাড় দেওয়া হবে না মর্মে ব্যাংকার্সদের সভায় সাফ সাফ জানিয়ে দেন গভর্ণর। এখন থেকে সব ধরনের ঋণ নিয়মিত আদায় করতে হবে।

খেলাপি ঋণ আদায়ে জোর দিতে হবে  আর এভাবেই খেলাপি ঋণ কমাতে হবে। অবলোপন করে নয়।

আর নতুন করে যাতে কোনো ঋণ খেলাপি না হয়, সেদিকেও নজর রাখতে বলা হয়েছে।

ভার্চুয়াল বৈঠকে ব্যাংক এমডিরা বলেন, করোনার কারনে গত বছর ব্যাংকগুলো কোনো ঋণ আদায় করতে না পারায় ঋণ আদায়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

ঋণের কিস্তি পরিশোধের স্থগিতের মেয়াদ বাড়তে পারে বলে চলতি বছরেও অনেকে আশা করছেন। এ কারণে কিস্তির মেয়াদ শেষ হলেও অনেকে ঋণ শোধ করছেন না।

তারা আরও বলেন, খেলাপি ঋণে আর কোনো ছাড় দেওয়া হোক, তারা সেটি চান না। এখন থেকে নিয়মিত ঋণ পরিশোধ না করলে তা প্রচলিত বিধি অনুযায়ী খেলাপি হিসাবে চিহ্নিত করা হবে।

প্রণোদনা প্যাকেজগুলোর বাস্তবায়নের ধীরগতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নে ব্যাংকগুলোর অনীহার সমালোচনা করে তিনি বলেন,

এ প্যাকেজ বাস্তবায়নের সময়সীমা আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

বিস্তারিত পড়ুন

আরও পড়ুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *