ব্যাংকিং ডিপ্লোমা

ব্যাংক ঋণের জামানত হিসাবে কি ধরনের জামানত গ্রহণ করে?

ব্যাংকের ঋণদান অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ কাজ। ব্যাংক ঋণের জামানত হিসাবে কি ধরনের জামানত গ্রহণ করে? জামানত গ্রহণের ক্ষেত্রে ব্যাংক জামানত সম্পত্তির মালিকানা, হস্তান্তরযােগ্যতা, দায়মুক্ততা, মূলা, গুণগত মান, তারল্যা ইত্যাদি নানাবিধ বিষয় বিবেচনা করে। ঋণদানের পূর্বে ব্যাংককে অবশ্যই ঋণের টাকা ফেরত পাওয়া সম্বন্ধে অত্যন্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হয়।

জামানত একদিকে যেমন ব্যাংকের নিরাপত্তা হিসেবে কাজ করে তেমনি ঋণগ্রহীতাকে ঋণের টাকা ফেরত দিতে সহায়তা করে থাকে। আর ব্যাংক ঋণের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ব্যাংক বিভিন্ন প্রকার জামানত নিয়ে থাকে। ব্যাংকের এ জামানতকে তিনভাগে ভাগ করা হয়েছে। নিচে এদের সম্পর্কে আলােচনা করা:

১, ব্যক্তিগত জামানত (Personal security) : ব্যাংক যখন ঋণ গ্রহীতাকে তার ব্যক্তিগত জামানত অথবা তার পক্ষে তৃতীয় কোন ব্যক্তির জামানতে ঋণ প্রদান করে তখন তাকে ব্যক্তিগত জামানত বলে। ব্যক্তিগত জামানতের ক্ষেত্রে তিনটি পক্ষ বিদ্যমান। যথা :

(১) ব্যাংক
(২) ঋণ গ্রহীতা এবং
(৩) জামিনদার।

ব্যাংকের সাথে ঋণ গ্রহীতার পরিচয় ও আর্থিক লেনদেন না থাকলে এমনকি ঋণগ্রহীতার জামানত হিসেবে কোন সম্পদ না থাকলে ব্যাংক ব্যক্তিগত জামানত বিবেচনা করতে পারে। এক্ষেত্রে ব্যাংক জামানতকারীর অর্থনৈতিক অবস্থা, সুনাম, চরিত্র, ব্যাংকের সাথে তার লেনদেনের পরিস্থিতি, ঋণের পরিস্থিতি ইত্যাদি বিষয় জামানত হিসেবে গণ্য করে।

ব্যবসায়ী বাজারে সুনাম রয়েছে এরূপ ব্যক্তি কর্তৃক উপস্থাপিত ব্যক্তিগত জামানত ব্যাংক ঋণ প্রদান করে থাকে। ঋণগ্রহীতা মেয়াদান্তে ঋণের অর্থ পরিশােধে অসমর্থ হলে ব্যাংক জামানতকারীর নিকট উক্ত অর্থ আদায়ের দাবি জানায়, জামানতকারী এরূপ পরিস্থিতিতে এ অর্থ পরিশােধে অস্বীকৃতি জানালে ব্যাংক কোর্টে মামলা করে বা আইনের আশ্রয় নিয়ে তৃতীয় ব্যক্তির নিকট হতে এ ঋণের সকল অর্থ আদায় করতে পারে।

এই প্রশ্নের সাথে একটি সম্পূরক প্রশ্ন আসতে পারে সেটি হল ”ঋণের জামানত হিসেবে কি ধরনের সম্পত্তি গ্রহণ করা যাবে না ” উত্তর: সরকারি সম্পত্তি, সম্পত্তির উপর মামলা আছে অথবা অন্য কোথাও কোনো প্রতিষ্ঠানের নিকট  মর্টগেজকৃত..  বিস্তারিত  জানতে আমাদের সাথে থাকুন

২. অব্যক্তিক জামানত (Non-personal security): ব্যাংক ঋণদানকালে যখন ঋণের জামানত হিসেবে ঋণ গ্রহীতার কাছ থেকে স্থাপর বা অস্থাবর সম্পত্তি বন্ধক রেখে ঋণ দেয় তখন তাকে অব্যক্তিক বা বস্তুগত জামানত বলে।

এ ধরনের জামানত গ্রহণের ক্ষেত্রে ব্যাংক জামানতি সম্পত্তির মালিকানা, হস্তান্তরযােগ্যতা, দায়মুক্ততা, মূল্য, গুণগত মান, তালাতা ইত্যাদি নানাবিধ বিষয় বিবেচনা করে থাকে। ভূমি, দালানকোঠা, কলকজা ও যন্ত্রপাতিl, মূল্যবান দ্রব্যসামগ্রী, পণ্য-দ্রব্য, বিক্রয়যােগ্য সিকিউরিটি, গুরুত্বপূর্ণ দলিলপত্র অব্যক্তিক জামানতের উদাহরণ। নিচে অব্যক্তিক জামানত সম্পর্কে আলােচনা করা হলাে : অব্যক্তিক জামানতসমূহ ।

ক পূর্বস্বত্ব
খ. পণদ্ৰবা বন্ধক
গ, স্থায়ী সম্পত্তি বন্ধক
ঘ . দখলহীন জামানত
ঙ. অতিরিক জামানত।

ক. পূর্বস্বত্ব বা লিয়েন (lien) : ঋণের টাকা পরিশােধ না হওয়া পর্যন্ত ঋণদাতা ব্যাংক কর্তক ঋণ গ্রহীতার সম্পদ আটক রাখার অধিকারকে ব্যাংকারের লিয়েন বা পূর্বশর্ত বলে । এর বিশেষত্ব হলাে ঋণগ্রহিতা সম্পত্তির প্ৰকৃত মালিক হলেও। ঋণ পরিশােধ না করা পর্যন্ত তা বিক্রি বা হস্তান্তর করতে পারবে না। পূর্বসত্ব দুপ্রকারের হতে পারে। যেমন—

  • সাধারণ পূর্বস্বত্ব (General lien) যখন একাধিক ঋণের জন্য ঋণগ্রহীতা ঋণদাতাকে কতিপয় সম্পত্তির উপর পূর্বস্বত্ব অর্পণ করে তখন তাকে সাধারণ পূর্বস্বত্ব বলে।
  • বিশেষ পূৰ্বসত্ব (Special lien) কোন বিশেষ ঋণের জন্য এক বিশেষ সম্পত্তির পর ঋণগ্রহীতা ঋথদাতাকে যে পূর্বস্বত্ব অর্পণ করে তাকে বিশেষ পূর্বসত্ব বলে।

প্রশ্নটি এই ভাবে ও আসতে পারে: ব্যাংক ঋণের ব্যাংক ঋণের জামানত হিসাবে কয়েকটি প্রচলিত জামানত সম্পর্কে বর্ণনা করুন।

খ. পণ্য-দ্রব্য বন্ধক (Pledge); ঋণ পরিশােধের নিশ্চয়তা হিসেবে যখন কোন পণ্য-দ্রব্যের দখল । চাবি ব্যাংকের কাছে ছেড়ে দেয়া হয় তখন তাকে জামানত বন্ধক বা Pledge বলে। এক্ষেত্রে পণ্যের মালিকানা স্বত্ব ঋণগ্রহীতার থাকলেও দখল স্বত্ব ব্যাংকের নিকট থাকায় ঋণ পরিশোধ না করা পর্যন্ত উক্ত পন্য দ্রব্য ঋণগ্রহীতা বিক্রয় করতে পারে না। এক্ষেতে ঋণগ্রহীতা ঋণের টাকা প্রদানে ব্যর্থ হলে ব্যাংক বা পণ্য-দ্রব্য বিক্রয় করে ঋণের টাকা আদায় করতে পারে।

গ. মটগেজ বা স্থায়ী সম্পত্তি বন্ধক (Mortgage) : কোন ঋণের নিরাপত্তাস্বরূপ যখন কোন ঋণগ্রহীতার স্থাবর সম্পদের স্বত্ব বা অধিকার ঋণদাতার নিকট হস্তান্তর করা হয় তখন তাকে মর্টগেজ বা স্থাবর সম্পদের বন্ধক বলা হয়। ঋণগ্রহীতা ঋণের টাকা প্রদানে ব্যর্থ হলে ব্যাংক জামানতি সম্পদের স্বত্বাধিকার লাভ করবে। মর্টগেজ আবার দু’প্রকারের হয়ে থাকে। যেমন—

(i) স্থায়ী বন্ধক বা আইনানুগ (Fixed mortgage) : এক্ষেত্রে বন্ধক চুক্তি লিখিত ও রেজিস্ট্রিকৃত হয়। ফলে ব্যাংক বন্ধকী সম্পত্তির উপর স্থায়ী অধিকার লাভ করে। ঋণগ্রহীতা ঋণের টাকা পরিশােধে ব্যর্থ হলে আইনানুযায়ী ব্যাংক সম্পত্তির পূর্ণ অধিকারপ্রাপ্ত হয়।

(ii) ভাসমান বা ন্যায়সঙ্গত বন্ধক (Floating mortgage) : এক্ষেত্রে ঋণগ্রহীতা ব্যাংকের নিকট সম্পত্তির দলিলপত্র হস্তান্তর করে মাত্র। কিন্তু সম্পত্তির ভােগ দখল তার কাছেই থাকে। ঋণগ্রহীতা ঋণের টাকা পরিশােধে ব্যর্থ হলে ব্যাংককে ঋণের টাকা আদায়ের জন্য বন্ধককৃত সম্পত্তি বিক্রয় করার জন্য আদালতের অনুমতি নিতে হয়। আদালত ন্যায়সঙ্গত মনে করলে ব্যাংককে জামানকৃত সম্পত্তিটি বিক্রির অনুমতি দিবেন।

ঘ, বন্ধকী জিম্মা বা দখলহীন বন্ধক বা হাইপােথিকেশন (Hypothecation) : অনেক সময় ঋণের অর্থ স্থাবর বা অস্থাবর সম্পত্তি গড়ে তােলা হয় এবং ঋণের জামানত হিসেবে উক্ত সম্পদ ঋণদাতার দখলে থাকে। কিন্তু সম্পত্তি ঋণগ্রহীতাই ভােগদখল করে। নির্দিষ্ট সময়ে ঋণ পরিশােধে ব্যর্থ হলে বন্ধকী সম্পত্তির উপর ঋণদাতার মালিকানা প্রতিষ্ঠিত হয়। যে চুক্তির মাধ্যমে এরূপ করা হয় তাকে বন্ধকী দলিল বা রেহাননামাও বলা হয়।

ব্যাংক ঋণের বিপরীতে উপরােক্ত জামানতসমূহ সংরক্ষণ করে থাকে। পদত্ত ঋণের নিরাপত্তার সাথে ব্যাংকের ব্যবসায়িক অস্তিত্ব জড়িত বিধায় ব্যাংকে যথেষ্ট সতর্কতার সাথে এ সকল জামানত গ্রহণ করতে হয়।

ঙ. অতিরিক্ত জামানত (Collateral security) : ব্যাংক ঋণদানকালে ঋণের অধিক নিরাপত্তার জন্য মূল জামানত ছাড়াও আরাে অতিরিক্ত সম্পদ জামানত হিসেবে গ্রহণ করলে তাকে অতিরিক্ত জামানত বলে গণ্য করা হয়। অতিরিক্ত জামানত ব্যক্তি বা অব্যক্তি যে কোন প্রকারের হতে পারে। এক্ষেত্রে মূল জামানতের দ্বারা ঋণের সুদ ও আসল সম্পূর্ণ আদায় না হলে অতিরিক্ত জামানত হতে টাকা আদায় করে থাকে।

উপরােক্ত আলােচনায় ব্যাংক ঋণদানের ক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রকার জামানতের প্রবর্তন করেছে। ঋণগ্রহীতা যে কোন ব্যবস্থার যথাযথ স্বীকৃতির মাধ্যমেই ব্যাংক থেকে ঋণ সংগ্রহ করে থাকে। জামানতের মাধ্যমেই ব্যাংক ঋণের অর্থ ফেরত পাবার ব্যাপারে নিশ্চিত থাকে। যদি ঋণের অর্থ ফেরত পাওয়া না যায়, তাহলে আইন অনুযায়ী উক্ত জামানত নগদ টাকায় পরিণত করে ঋণ আদায় করা যায়।

নিছে লক্ষ করুন কাজে লাগতে পারে:
ঋণগ্রহীতার (ক্রেডিটওয়ার্দিনেস) কেন যাচাই করা হয়? যাচাইয়ের বিষয়গুলাে কি?
সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা কি? এর অভাবে ব্যাংক কিভাবে ক্ষতিগ্ৰন্ত হতে পারে?
প্রতিযােগিতামূলক ব্যাংকিং-এ ঋণমূল্য পদ্ধতি পরিবর্তিত ও অপরিবর্তিত
Suggestion: Lending Operation & Risk Management (LRM) DAIBB-ল্যান্ডিং অপারেশন এন্ড রিক্স ম্যানেজমেন্ট সাজেশন

LEARN MORE>> LOAN & SECURITY

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *