আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি

ভারতে করোনায় চিকিৎসকেরা প্রাণ হারাচ্ছে বেশী

ভারতে করোনায় চিকিৎসকেরা বেশী প্রাণ হারাচ্ছে মহামারি করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে অনেকটা বেসামাল ভারত। অক্সিজেন থেকে শুরু করে হাসপাতালের শয্যা- সবকিছুরই চলছে হাহাকার। এমনকি মৃত মানুষের শেষকৃত্য করতেও হিমশিম খাচ্ছে প্রশাসন। করোনা রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে এরই মধ্যে দেশটির বহু চিকিৎসক প্রাণ হারিয়েছে। এমন বাস্তবতায়ও মনোবল না হারিয়ে দিনরাত রোগীদের সেবা করে যাচ্ছেন দেশটির চিকিৎসকরা। 

ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (আইএমএ) তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার (৭ মে) পর্যন্ত করোনায় ৮৬৪ জন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে গত বছর মৃত্যু হয়েছে ৭৩৬ জনের। চলতি বছর এপ্রিল পর্যন্ত আরও ১২৮ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

আর রাজ্য হিসেবে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে মহারাষ্ট্রে। সেখানে এখন পর্যন্ত ১৬৮ জন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে শুধু এপ্রিলেই ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তামিলনাড়ুতে ৮৯ জন আর পশ্চিমবঙ্গে ৮০ জন চিকিৎসক মৃত্যুবরণ করেছেন।

মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্য বিভাগ অনুযায়ী, এই রাজ্যে এখন পর্যন্ত ১৮ হাজার চিকিৎসক করোনা সংক্রমিত হয়েছেন।

বহু নার্সও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। স্বাস্থ্য বিভাগের পরিসংখ্যান অনুযায়ী এই সংখ্যা ৪ হাজার ২১৭। 

জানা গেছে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ৫০ থেকে ৭০ বয়সী চিকিৎসক বেশি মারা গেছেন। ভারতে করোনায় চিকিৎসকেরা প্রাণ হারাচ্ছে এমনকি বহু তরুণ চিকিৎসকেরও মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে কয়েকজন টিকাও নিয়েছিলেন।

সুত্র : সময় নিউজ

এদিকে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে ভারতে একদিনে করোনাভাইরাসে প্রাণ হারিয়েছেন ৪ হাজার ২০০ মানুষ। শুক্রবার দেশটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন চার লক্ষাধিক। নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেও দেশটিতে কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না করোনা মহামারি। দেশটিতে করোনার এ ভয়াবহতাকে আগ্নেয়গিরির সঙ্গে তুলনা করেছে জাতিসংঘ।

জীবনের জয়গান এখানে নিস্তব্ধ, রাজধানী দিল্লি থেকে মহারাষ্ট্র কিংবা অন্য যে কোনো রাজ্য- সব জায়গা যেন মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে।

দেশটিতে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত প্রতিদিনই আগের দিনের রেকর্ড ভাঙছে এর লাগাম কোথায় জানা নেই কারও।

গতকাল শুক্রবার আগের সব রেকর্ড ভেঙে একদিনে করোনায় সর্বোচ্চ প্রাণহানি দেখেছে ভারত। সেই সঙ্গে নতুন শনাক্তের সংখ্যা আবারও চার লাখ ছাড়াল।

যদিও মহামারি রুখতে মাহারাষ্ট্রসহ অন্য রাজ্যগুলোতে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা আরো কঠোর করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বাড়ানো হয়েছে টিকাদান কর্মসূচির গতিও।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা নিয়ন্ত্রণে অনেক দেরিতে পদক্ষেপ নিয়েছে জনসংখ্যার দিক থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশটি।

ভারতের করোনার লাগামহীন অবস্থাকে আগ্নেয়গিরির সঙ্গে তুলনা করেছে ইউনিসেফ। একইসঙ্গে মাহমারি নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের পাশপাশি সর্বোচ্চ সহযোগিতার কথা জানিয়েছে সংস্থাটি।

 ভারতে ইউনিসেফের প্রতিনিধি ইয়াসমিন হক বলেন, ইউনিসেফ ভারতের প্রতিদিনকার করোনর বিস্তার নিয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। প্রথম ঢেউয়ের চেয়েও করোনা এখন অধিক গতিতে ছড়াচ্ছে। গড়ে প্রতি সেকেন্ডে চার জন নতুন করে আক্রান্ত হচ্ছেন। আর প্রতি মিনিটে মারা যাচ্ছেন দুজনের বেশি।

এদিকে ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, ভারতকে চিকিৎসাসহ অন্যান্য সহায়তা দেওয়া অব্যাহত রেখেছে যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশ। সহযোগিতা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ অন্যান্য দেশও।

সুত্র: সময় নিউজ

আরও পড়ুন : বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের নিতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *