নতুন আগতশিক্ষা বার্তা

সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা কি? এর অভাবে ব্যাংক কিভাবে ক্ষতিগ্ৰন্ত হতে পারে?

ভাল সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনার অভাবে ব্যাংক বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে পারে

সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা : সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে পরিকল্পিত প্রক্রিয়ায় সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনার কৌশল নির্ধারণ করতে হয়। এইগুলো সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনার মূল লক্ষ্যে সাথে সম্পর্কযুক্ত । কোন আর্থিক ব্যবস্থাপক যে পদ্ধতিতে আর্থিক ব্যবস্থাপনা সম্পাদন করে থাকেন তা বর্ণিত হল:

১. পরিকল্পনা : পরিকল্পনা হচ্ছে কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রথম গুরুত্বপূর্ণ কাজ। সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা মাধ্যমে র্অথের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্ক বিস্তারিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়।

পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত বিষয়গুলোর মধ্যে মােট অর্থের পৰিমাণ প্রয়োজনীয়তার সময় সুনির্দিষ্ট অর্থ বিনিয়োগের খাতসমূহ বরাদ্দকরণ এ খাতের সম্পূরক বিষয়সমূহ প্রস্তুতকরণ ইত্যাদি।

২. বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত : আর্থিক ব্যবস্থাপনার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা।সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা সম্পদ সর্বাধিকরনের লক্ষে বিভিন্ন প্রকল্প সনাক্তকরণ বিশ্লেষণ এবং পরবর্তীতে সবচেয়ে সুবিধাজনক প্রকল্পে নিরাপদ বিনিয়োগ করা এই সিদ্ধান্তের মূল কাজ। বিনিয়োগ স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী হতে পারে।

স্বল্পমেয়াদী বিনিয়োগ সাধারনত চলতি সম্পত্তি করা হয়। আর যেখান থেকে অনেক বছর মুনাফা র্অজন করা সম্ভব সেখানেই বিনিয়োগ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কাজ।

৩. তারল্য সিদ্ধান্ত ; প্রতিষ্ঠানের দৈনন্দিন কার্যাবলি মিটানাের জনা যে পরিমান নগদ অর্থ হাতে রাখতে হয় তাকে তারল্য বলে। এটি নগদেৱ কম বা বেশি উভয়ই প্রতিষ্ঠানের জন্য ক্ষতিকর।

নগদের পরিমান প্রয়োজনের তুলনায় বেশি হলে মূলধন অলস অবস্থায় পরে থাকে। ফলে মুনাফার পরিমান হ্রাস পায়। তাই নগদের সঠিক ব্যবস্থাপনা মাধ্যমে এ নগদ অথের পরিমান কাম্য স্তরে রাখতে হবে।
অর্থাৎ নগদে পরিমাণ যেন বেশি না হয় আবার কম না হয়। সুতরাং তারল্য সিদ্ধান্ত বা তারল্য ব্যবস্থাপন সংক্রান্ত সকল কাজই সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা আর্থিক ব্যবস্থাপনা অন্তর্ভুক্ত।

প্রশ্নটা এইভাবে আসতে পারে: সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা Asset-Liability Management(ALM) বলতে কি বুঝেন? আপনি কি এই মর্মে একমত পোষণ করেন যে, ভাল সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনার অভাবে ব্যাংক বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে পারে?

৪. তহবিল ব্যবস্থাপনা ; আর্থিক প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য বিভিন্ন প্রকল্পর উপার্জন ক্ষমতা ও সম্ভাব্য ঝুকিসমূহের মূল্যায়ন করেন। আর্থিক ব্যবস্থাপনা দীঘমেয়াদি প্রকল্পের সুদ বা লাভ বিবেচনার পাশাপাশি চলতি বিনিয়োগের সম্ভাবনা বিবেচনা করতে হয়। দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়ােগ লাভজনক হলেও ঝুকিপূর্ণ।

চলতি বিনিয়োগ বা স্বল্পমেয়াদি বিনিয়োগ তারল্য সংরক্ষণ ব্যবস্থায় সহায়ক। তাই স্থায়ী ও চলতি বিনিয়োগের মধ্যে সামঞ্জস্য নিশ্চিত করা তহবিল ব্যবস্থাপনা অন্যতম কাজ।

৫. সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা ; সম্পদ ও দায় ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানের অর্থায়নের সাথে সমৃক্ত সম্পত্তিসমূহ যথাযথভাবে পরিচালনা, সংরক্ষণ ব্যবস্থাপনার জন্য আর্থিক ব্যবস্থাপককে খেয়াল রাখতে হবে। এসব সম্পত্তি সঠিকভাবে বিন্যাসপূর্ক এগুলাে সংরক্ষণ ও ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৬. লভ্যাংশ সিদ্ধান্ত: লভ্যাংশ এমনভাবে প্রদান করতে হবে যাতে কোম্পানির শেয়ারহোল্ডারগণ সন্তুষ্ট হন এবং ভবিষ্যতে সম্ভাব্য বিনিয়ােগ সুযােগের যেন সদ্যবহার করা যায় এবং কোম্পানির দৈনন্দিন কার্যাবলিতে যেন ব্যাঘাত না ঘটে।

৭, বায় নিয়ন্ত্রণ: Asset-Liability Management(ALM)প্রতিষ্ঠানের পরিকল্পনা অনুযায়ী মুনাফা অর্জনের জন্য বিভিন্ন ধরনের ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করা অপরিহার্য। অপরিকল্পিতভাবে ব্যায় বৃদ্ধি কিংবা অপচয়মূলক ব্যয় উভয়ই মুনাফা অর্জনের বাধাসরূপ।র্আথিক ব্যাবস্থাপককে তাই বিভিন্ন কাজের সার্বিক ব্যয় নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রকার নিয়ন্তন মূলক কেীশলাদি গ্রহণ করতে হবে।

আরও প্রশ্ন উত্তর পেতে সাহসী বার্তা পেইজবুক পেইজটি লাইক ও ফলো করে রাখুন

এক্সিম ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড সম্পের্কে জেনে নিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *